অন্যরকম কুয়াশাচ্ছন্ন সকাল
Published : Sunday, 6 December, 2020 at 12:36 PM, Count : 2823

বর্তমান প্রতিবেদক: রাজধানীর পুরান ঢাকার লালবাগের বাসিন্দা পেশায় ব্যবসায়ী মধ্যবয়সী আবদুল মতিন প্রতিদিন প্রাতঃভ্রমণে ঐতিহাসিক সোহরাওয়ার্দী উদ্যানে আসেন। প্রাতঃভ্রমণকারীদের অধিকাংশই ভোরের আলো ফোটার পরপরই উদ্যানে এলেও আবদুল মতিন বেশ দেরিতে, আনুমানিক সকাল পৌনে ৮টা থেকে ৮টার মধ্যে আসেন। যথারীতি আজও ৮টার পরই আসেন। তার পাশ দিয়ে পরিচিত একজন হেঁটে গেলেও চিনতে পারলেন না।
পরিচিত যাকে চিনতে পারলেন না সেই ব্যক্তি ঘুরে এসে সামনে দাঁড়িয়ে ঠাট্টাচ্ছলে বলেন, ‘কী মতিন ভাই, আমাকে চিনতে পারেননি, পর হয়ে গেলাম নাকি? কিছুটা বিব্রত হয়ে আবদুল মতিন বললেন, ‘চিনবো না কেন, কিন্তু কুয়াশার কারণে খেয়াল করতে পারিনি। দেখেন সূর্য উঠলেও ঘন কুয়াশার কারণে মনে হচ্ছে যেন সূর্য ডুবছে। উদ্যানে পাখি ডাকছে, ঘাসের ওপর বিন্দু বিন্দু শিশিরকণা জমেছে। দেখতে কী যে ভালো লাগছে। কুয়াশা ও হালকা শীতের কারণে রাস্তায়ও মানুষজন কম। এ যেন অন্যরকম ঢাকা।
রোববার কাকডাকা ভোর থেকেই কুয়াশার চাদরে ঢেকেছিল রাজধানী ঢাকা। ভোর ৬টা ২৮ মিনিটে সূর্যোদয় হলেও কুয়াশার কারণে সূর্য দেখা যায়নি। ভোরবেলায় যারা ঘরের বাইরে বের হয়েছেন তারা কুয়াশার কারণে কয়েক হাত দূরের মানুষকেও দেখতে পাচ্ছিলেন না। গণপরিবহনগুলোকেও রাস্তায় হেডলাইট ও ফগলাইট জ্বালিয়ে চলাচল করতে দেখা যায়। শীত জেঁকে না বসলেও ভোরবেলায় মানুষকে শীতের কাপড় পরিধান করেই বাইরে বের হতে দেখা যায়।
আবহাওয়া অধিদফতরের পূর্বাভাসেও সকাল ৯টা থেকে পরবর্তী ২৪ ঘণ্টার আবহাওয়ার পূর্বাভাসে বলা হয়, অস্থায়ীভাবে আংশিক মেঘলা আকাশসহ আবহাওয়া প্রধানত শুষ্ক থাকতে পারে। শেষরাত থেকে সকাল পর্যন্ত সারাদেশে কোথাও কোথাও হালকা থেকে মাঝারি ধরনের কুয়াশা পড়তে পারে। সারাদেশে দিনের ও রাতের তাপমাত্রা প্রায় অপরিবর্তিত থাকতে পারে। ভোর ৬টায় ঢাকায় বাতাসের আপেক্ষিক আর্দ্রতা ছিল ৯৯ শতাংশ। আগামী ৭২ ঘণ্টায় আবহাওয়ার সামান্য পরিবর্তন হতে পারে।
শনিবার দেশের সর্বোচ্চ তাপমাত্রা ছিল বরিশালের খেপুপাড়ায় ৩০ ডিগ্রি সেলসিয়াস এবং সর্বনিম্ন রাজশাহীর বদলগাছিতে ১৩ ডিগ্রি সেলসিয়াস। রাজধানী ঢাকায় ছিল সর্বোচ্চ ২৭ দশমিক ৭ ডিগ্রি সেলসিয়াস এবং সর্বনিম্ন ১৮ দশমিক ৪ ডিগ্রি সেলসিয়াস।
রোববার সূর্যাস্ত ৫টা ১১ মিনিটে ও আগামীকাল (৭ ডিসেম্বর) সূর্যোদয় ৬টা ২৯ মিনিটে।



« পূর্ববর্তী সংবাদপরবর্তী সংবাদ »


সর্বশেষ সংবাদ
সর্বাধিক পঠিত
সম্পাদক ও প্রকাশক: আলহাজ্ব মিজানুর রহমান, উপদেষ্টা সম্পাদক: এ. কে. এম জায়েদ হোসেন খান, নির্বাহী সম্পাদক: নাজমূল হক সরকার।
সম্পাদক ও প্রকাশক কর্তৃক শরীয়তপুর প্রিন্টিং প্রেস, ২৩৪ ফকিরাপুল, ঢাকা থেকে মুদ্রিত।
সম্পাদকীয় ও বাণিজ্যিক কার্যালয় : মুন গ্রুপ, লেভেল-১৭, সানমুন স্টার টাওয়ার ৩৭ দিলকুশা বাণিজ্যিক এলাকা, ঢাকা-১০০০ থেকে মুদ্রিত।, ফোন: ০২-৯৫৮৪১২৪-৫, ফ্যাক্স: ৯৫৮৪১২৩
ওয়েবসাইট : www.dailybartoman.com ই-মেইল : [email protected], [email protected]
Developed & Maintainance by i2soft